নারীর উন্নয়ন ছাড়া দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয়:সুজন ৯ নভেম্বর সিইপিজেড চত্বরের নারী সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে ৩৮নং ওয়ার্ড এক প্রতিনিধি সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক:৭নভেম্বর

নারীর উন্নয়ন ছাড়া দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয় বলে মত প্রকাশ করেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। তিনি আজ ৭ নভেম্বর বুধবার বিকাল ৫ ঘটিকায় ইপিজেড অঞ্চলে ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট একটি আধুনিক মাতৃসদন হাসপাতাল, স্থায়ী ডে-কেয়ার সেন্টার স্থাপন ও পতেঙ্গা থেকে বহদ্দারহাট পর্যন্ত নারীদের জন্য স্বতন্ত্র গণপরিবহন চালুর দাবীতে আগামী ৯ নভেম্বর শুক্রবার বিকাল ৩ টায় বন্দর, ইপিজেড ও পতেঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সিইপিজেড চত্বরের বিশাল নারী সমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে ৩৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরীর বাসভবনে অনুষ্টিত ৩৮, ৩৯, ৪০ ও ৪১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের এক প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখছিলেন।

৩৮নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফারজানা শিরীন মুন্নীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সুইটি দে ঝুমু’র সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, ইপিজেড থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক হাজী হারুনুর রশীদ, যুগ্ম-আহবায়ক মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবু তাহের, পতেঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহবায়ক এ.এম.এন ইসলাম, ৩৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী শফিউল আলম, ৪০নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চৌধুরী আজাদ, ৪১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল আলম, ডা. ফজলুল হাজেরা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ এর সহযোগী অধ্যাপক মিসেস তাহমিনা বেগম, ইপিজেড থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শারমিন সুলতানা ফারুক, ইপিজেড থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রুখসানা বেগম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নিলুফা ইয়াসমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাবুন নেছা, মনজুর কাদের, কামাল উদ্দিন মেম্বার, মোরশেদ আলম, অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, সালাউদ্দিন বাদশা, ৩৯নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছিমা আকতার, সাধারণ সম্পাদক রুমানা আকতার রুমা, ৪০নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফরোজা খানম, সাধারণ সম্পাদক নাছিমা আকতার, ৪১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারজানা আকতার, সাধারণ সম্পাদক স্বপ্না বেগম, সরওয়ার জাহান চৌধুরী, কামরুল হুদা চৌধুরী, মোজাম্মেল হোসেন চৌধুরী প্রমূখ।

সভায় জনাব সুজন আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর নারী সমাজের উন্নয়নে পদক্ষেপ নেন। তিনি আমাদের উপহার দেন বাহাত্তরের অনন্য সংবিধান। জাতির পিতা জাতীয় সংসদে সর্বপ্রথম নারীদের জন্য ১৫টি আসন সংরক্ষিত করেন। এটাই বাংলাদেশের ইতিহাসে নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে প্রথম বলিষ্ঠ পদক্ষেপ। যার ফলে স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশের প্রথম সংসদেই নারীরা প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পায়।

এরই ধারাবাহিকতায় আওয়ামী লীগ যখনই সরকার গঠন করেছে তখনই দেশের নারীসমাজের উন্নয়নে কাজ করেছে। বর্তমান সরকার নারীর অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে কাজ করে যাচ্ছে। নারীর সামর্থ্য উন্নীতকরণ, নারীর অর্থনৈতিক প্রাপ্তি বৃদ্ধিকরণ, নারীর মতপ্রকাশ ও মতপ্রকাশের মাধ্যম সম্প্রসারণ এবং নারীর উন্নয়নে একটি সক্রিয় পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার।
নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ সরকার এবং সরকার প্রধান হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক পুরস্কারপ্রাাপ্তির কথা উল্লেখ করে জনাব সুজন বলেন, নারী সমাজের অর্জিত সাফল্যে নারীরা আজ সমাজ আলোকিত করেছে। তাদের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে একটি উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্টিত হতে চলছে। এ অবদান সমগ্র নারী সমাজের।

সভায় আগামী ৯ তারিখের বিশাল নারী সমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে পাড়ায় মহল্লায় গিয়ে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের চিত্র নারী সমাজের নিকট তুলে ধরার জন্য জনাব সুজন উপস্থিত নারী নেতৃবৃন্দের নিকট আহবান জানান।

Print Friendly, PDF & Email