Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বর্নাঢ্য আয়োজনে বান্দরবানে তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের ফুল বিঝু ও ঘিলা খেলা অনুষ্টিত

বাসুদেব বিশ্বাস,( বান্দরবান প্রতিনিধি ) :
পার্বত্য জেলা বান্দরবানে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ গোষ্টি সম্প্রদায়ের জনসাধারণ পুরাতন বছরকে বিদায় আর নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে শুরু করেছে নানা কর্মসুচী।

শুক্রবার সকালে বান্দরবানের সাংগু নদীর তীরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টির তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের তরুণ তরুনীরা পানিতে ফুল বিসর্জন দিয়ে শুরু করে ফুল বিষু উৎসবের। এসময় বিভিন্ন পাড়া ও গ্রামের তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের যুবক-যুবতীরা একত্রিত হয়ে পানিতে ফুল বির্সজন দিয়ে পুরাতন গ্লানি মুছে ফেলে নতুন বছরকে স্বাগত জানায়। পুরোনো বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর এই আনন্দ এখন বইছে পুরো জেলায়।

ফুল বিষু শেষ করে আদিবাসী তরুণ তরুণীরা জড়ো হয় বান্দরবান সদরের বালাঘাটা বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে, এসময় তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের তরুণ তরুণীরা মেতে ওঠে ঘিলা খেলা উৎসবে।

তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের বিশ্বাস আদিকালে এক প্রেমিক যুগল এই ঘিলা খেলা খেলে তাদের ভালোবাসা পরিপূর্ণ করেছিল , আর এই বিশ্বাস থেকেই তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায় প্রতিবছরই এই ঘিলা খেলায় মেতে ওঠে। ঘিলা খেলা হলো জঙ্গলি লতায় জন্মানো এক প্রকার বীজ।এই বীজ দিয়ে তংচঙ্গ্যারা খেলা করে। তংচঙ্গ্যারা বিশ্বাস করে ,ঘিলার লতার ফুল থেকে এই বীজের জন্ম আর পৃথিবীতে যারা জন্ম গ্রহন করে তারাই এই বীজ দেখতে পায়। আর বীজের ব্যবহারে অপদেবতা সহ সকল দু:খ চলে যায়, আর নিজ নিজ পরিবারে সুখ শান্তি নেমে আসে, তাই প্রতিবছর বিজুর দিনে তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায় পুরাতন বছরকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরের আগমনে এই ঘিলা খেলার মাধ্যমে সুখ শান্তির প্রত্যাশা করে।

প্রতিবছরের মত এবারে ও বর্নাঢ্য আয়োজনে এই ঘিলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে , আর জেলা ও উপজেলার ২৬ টি টিম এই ঘিলা খেলায় অংশ নিচ্ছে। ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দিপনার সাথে এই উৎসব আয়োজন করতে পারায় মহা খুশি তাই আয়োজকেরা। ঘিলা খেলা গোল্ডকাপ টুর্ণামেন্ট ২০১৯ইং সদস্য সচিব উজ্জ্বল তংচঙ্গ্যা বলেন,প্রতিবছরের মত এবারে ও বর্নাঢ্য আয়োজনে আমাদের তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায় নানা আয়োজনে এই ঘিলা খেলা ও ফুল বিঝু উদযাপন করছে । পুরাতন বছরকে বিদায় আর নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রতিবছরই আমরা এই আয়োজন করে থাকি ,আর এই বর্ণাঢ্য আয়োজনে তংচঙ্গ্যা সম্প্রদায়ের সাথে সাথে পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত সকল সম্প্রদায়ের জনসাধারণ একত্রিক হয়ে সকল আয়োজনে উৎসবমুখর পরিবেশে অংশ নেয় ।

নানা আনুষ্টানিকতার মধ্য দিয়ে পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত ¤্রাে,তংচঙ্গ্যা,চাকমা ,মারমাসহ ১১টি নৃ গোষ্টি বিভিন্ন আয়োজনে মধ্য দিয়ে পুরাতন বছরকে বিদায় আর নববর্ষকে বরণ উদযাপন করবে, আর ১৬ এপ্রিল নানা ধর্মীয় অনুষ্টানের মধ্য দিয়ে এই আয়োজনের সফল সমাপ্তি ঘটবে।

Print Friendly, PDF & Email