Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

সন্তানসম্ভবা “মালিহা “ডেঙ্গুর সঙ্গে লড়াই করে জীবন প্রদীপ নিবে গেল…! দুনিয়ার আলোয় চোখ মেলা হলো না তার অনাগত সন্তানেরও।

ডেক্স রিপোর্টঃ৬আগস্ট

এক দিন, দু’দিন; এক মাস, দু’মাস, চার মাস, ছয় মাস করে এভাবে আট মাস পর্যন্ত গুনছিলেন মালিহা মাহফুজ। আর ক’সপ্তাহ পরেই যে তার কোল আলোকিত করে ঘরে আসবে নতুন অতিথি। কিন্তু আনন্দক্ষণের সেই দিন গোনার আর সুযোগ পেলেন না মালিহা। নতুন অতিথির অপেক্ষায় সাজতে থাকা ঘরকে অন্ধকার করে নিভে গেলো তার জীবন প্রদীপ। দুনিয়ার আলোয় চোখ মেলা হলো না তার অনাগত সন্তানেরও।

প্রাণঘাতী ডেঙ্গু জ্বর মালিহাকে তার জন্মদিনের একদিন আগেই কেড়ে নিয়ে শোকের সাগরে ভাসিয়ে গেছে স্বজনদের, স্বামী প্রকৌশলী নাফিজ ইমতিয়াজকে। ১২ দিন ডেঙ্গুর সঙ্গে লড়াই করে এই সন্তানসম্ভবা গত শুক্রবার ভোরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।-খবর বাংলানিউজের

ফ্যাশন ডিজাইনার মালিহার সঙ্গে প্রকৌশলী নাফিজ ইমতিয়াজের বিয়ে হয়েছিল মাত্র একবছর আগে। সাজানো-গোছানো সুখের সংসারে নতুন অতিথি আসার খবরে ক’দিন আগে উদযাপনও হয়েছিল। কিন্তু এতো আনন্দ আর সইলো না মালিহার। ডেঙ্গু নিয়ে গেছে তাকে, তার অনাগত সন্তানকে; এই শোক যেন পাথর করে দিয়েছে নাফিজকে।মালিহা মাহফুজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে গিয়ে দেখা যায়, তাকে স্মরণ করে ‘রিমেমবারিং’ বার্তা দিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। সেখানে লেখা আছে, ‘আমরা আশা করি যারা মালিহাকে ভালবাসেন, তারা তাকে স্মরণ করতে এবং তার জীবনের স্মৃতিগুলো উদযাপন করতে প্রোফাইলটি পরিদর্শন করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন।’

মালিহার স্বামী নাফিজের ফেসবুক প্রোফাইলের কভার ফটোতে দুই দিন আগেও ছিল যুগলের হাসি-খুশি ছবি। ডেঙ্গু জ্বর এখন সেখানে সাঁটিয়ে দিয়েছে বিষাদমাখা এক শোকের দেয়াল। মালিহার শেষ প্রোফাইল ছবিটি ছিল মা আসমা উল হুসনা সাথীর সঙ্গে। ফেসবুক মালিহার অ্যাকাউন্ট ‘রিমেমবারিং’ করার আগ পর্যন্ত সে ছবিতে তার জন্য দোয়া করে মন্তব্য করেছেন স্বজনেরা।
ফ্যাশন ডিজাইনার মালিহার সঙ্গে প্রকৌশলী নাফিজের বিয়ে হয়েছিল একবছর আগে। নাফিজের বন্ধু এবং বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সহপাঠী মীর শাহরুখ ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, ‘গত বছরের জুনে নাফিজ ও মালিহার বিয়ে হয়। পেশাজীবী এ যুগলের সংসার বেশ ভালোই যাচ্ছিল। কিছুদিন আগে আমার বিয়েতেও এসেছিল দু’জন। ভাবী অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। পরিবারে নতুন সদস্য আগমনের খুশি ছিল। তার মধ্যেই সব তছনছ হয়েগেলো।’

শাহরুখ ইসলাম আরও বলেন, ‘প্রায় ১২ দিন আগে ডেঙ্গু শনাক্ত হয় ভাবীর। তখন থেকেই চিকিৎসা চলছিল। ইউনাইটেড হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত এক রোগীর প্রায় সোয়া ছয় লাখ টাকার বিল আসার একটি বিষয় অনলাইনে ভাইরাল হয়। সেটা ভাবীরই।
পরে ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কথায়ই ভাবীকে ২৭ জুলাই রাতে পিজি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানেই শুক্রবার ভোররাতের দিকে মারা যান ভাবী। (শনিবার ৩ আগস্ট) ভাবীর জন্মদিন। আর একদিন আগে তিনি মারা গেলেন। নাফিজ ও দুই পরিবারের সদস্যরা খুবই ভেঙে পড়েছেন। কিছুদিন আগেও পরিবারে নতুন সদস্যের আগমনী বার্তায় বেশ আয়োজন হয়েছিল। কিন্তু কী থেকে কী হয়ে গেলো!

সংবাদ সূত্রঃ দৈনিক পূর্বদেশ,০৪/০৮/১৯ইং

Print Friendly, PDF & Email