Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বীরকন্যা প্রীতিলতার আত্মহুতি দিবস উপলক্ষে দু’দিনের কর্মসূচী শুরু

এমন এক সময় ছিল যে সময়ে বাঙালীদেরকে এ্যানলোরা “কালো কুকুর” বলত। ব্রিটিশদের সে কথাকে কঠোরভাবে প্রতিবাদ করেছেন মাষ্টারদা এবং তাঁর অনুসারীরা। এ রকম একটি জলন্ত ঘটনা আমবাগানস্থ এ্যানলো ইউরোপিয়ান ক্লাব। বর্তমানে এ ক্লাবে বাংলাদেশ রেলের একটি প্রকৌশলীর দপ্তর রয়েছে। অব কাঠামো ঠিক থাকলেও ক্লাবটি প্রীতিলতার স্মৃতি রক্ষার্থে অবমুক্ত করার জন্য চট্টল ইয়ূথ কয়ারের পক্ষ থেকে ২০১১ সাল থেকে রেল কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানালেও আজো তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। বিষয়টি একেবারে ছোট কিন্তু মানসিকতার অভাব। ব্রিটিশদের উপরোক্ত বক্তব্যের বিরুদ্ধে ১৯৩২ সালে ২৩ সেপ্টেম্বর ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে বীর কন্যা প্রীতিলতা আমবাগানস্থ এ্যানলো ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমন করেছিলেন। ব্রিটিশদের গুলির আঘাতে ক্লাবের পশ্চিম দিকে একটি ব্রীজের পার্শ্বেই প্রীতিলতা আত্মহুতি দিয়েছিলেন। সেখানে একটি স্মুতি ফলক নির্মাণ করার উদ্যোগ নিয়েছে ইয়ূথ কয়ার। প্রীতিলতার আত্মহুতি দিবস উপলক্ষে দু’দিনের কর্মসূচীর প্রথম দিন ২২ সেপ্টেম্বর বিকাল ৩টায় পাহাড়তলী কিন্ডার গার্টেন স্কুলে চিত্রাংকন অনুষ্ঠানের উদ্ভোধনী উপলক্ষে কয়ার মহাসচিব অরুণ চন্দ্র বণিক উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। হিজল বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, স্কুল শিক্ষক নার্গিস ফাতেমা, কহিনুর আকতার সহ চট্টল ইয়ূথ কয়ারের কেন্দ্রীয় সদস্যবৃন্দ।
আগামীকাল ২৩ সেপ্টেম্বর বিকাল ৩টায় রেলওয়ে উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রীতিলতার স্মরণে অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। সংশ্লিষ্ট সবাইকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email