Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালিত

গত ৫ অক্টোবর ২০১৯ইং বিশ্ব শিক্ষক দিবস। এ উপলক্ষে গতকাল শনিবার বিকাল ৩ টায় বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটির উদ্যোগে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়, সিডিএ আ/এ, ১৩ নং রোড, আগ্রাবাদ, চট্টগ্রামে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভা ঐক্য পরিষদের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সেক্রেটারী মোঃ আলতাফ হোসেনের সঞ্চালনায় এবং সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা ও কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান এম ইকবাল বাহার চৌধুরী। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষার চট্টগ্রাম জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ জসিম উদ্দিন। প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম ল্যাবরেটরী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক হাবিব রহমত উল্লাহ, বিশেষ অতিথি ছিলেন মোঃ মহিব উল্লাহ মিয়া, এ এম ফরুক। বক্তব্য রাখেন ঐক্য পরিষদের চট্টগ্রাম বিভাগীয় নেতৃবৃন্দ ও শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ যথাক্রমে মিসেস নিলুফার বানু, কে এম মনিরুজ্জামান, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মিসেস রাহেলা বি চৌধুরী, মোঃ আবু ইউনুচ, মোঃ রিদওয়ানুল আলম, এস এম আবছার উদ্দিন, খায়ের উদ্দিন সোহেল, মোঃ জাফর আহম্মদ, ইন্জিনিয়ার হোসেন মুরাদ, মোঃ হেলাল উদ্দিন, মোঃ আমজাদ হোসেন, মোঃ মাহাবুবুর রহমান দূর্জয়, মোঃ শাহীন মোরশেদ, মোঃ শরীফুল কাদের, রনজিৎ কুমার নাথ, আব্দুল্লাহ আল মামুন, মোঃ আবু মুছা রাশেদ, মোঃ সালাউদ্দিন, মোঃ সানাউল্লাহ, মোঃ জসিম উদ্দিন, মোঃ জেহাদুল ইসলাম, কাজী আব্দুর রহমান, আব্দুল গনি সোহান, শহীদ হোসাইন, রাজিয়া সুলতানা, উম্মে সালমা, এনামুল হক কুতুবী, এম সামির উদ্দিন, মোঃ আমজাদ, মোঃ মঈন উদ্দিন, মোজাম্মেল হক, হালিমা বেগম, ফাতিমা আকতার, নাছরীন সুলতানা টুম্পা, জাহানারা পারভীন প্রমুখ। বক্তরা শিক্ষক দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরেন এবং আজকের প্রতিপাদ্য বিষয় তরুণ শিক্ষকরা : শিক্ষকতা পেশার ভবিষ্যত। এর উপর আলোচনার মাধ্যমে শিক্ষক দিবসের গুরুত্ব তুলে ধরে আমাদের একজন সাবেক শিক্ষক নেতা আর কে রুদ্রের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন এবং তার পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন। সেই সাথে অনুষ্ঠানের শুরুতে মান্যবর প্রধান অতিথি ও উদ্বোধক মহোদয়কে শিক্ষক দিবসের প্রোগ্রামে উপস্থিত না থাকার জন্য বিশ্ব শিক্ষক দিবস বানচাল করার লক্ষ্যে একজন লোক সাংবাদিক, সিটিভির উপস্থাপক ও সরকার দলীয় নেতা পরিচয়ে একটি গ্রামীন নাম্বার ও ইন্টারনেট থেকে ফোনে হুমকী ধমকী দিয়ে সারা বাংলাদেশের প্রাণপ্রিয় এই বিশাল শিক্ষক সংগঠনকে বিতর্কিত করা চেষ্টা করেন। তার কথায় কর্ণপাত না করে ২ জন অতিথিই প্রোগ্রামে উপস্থিত হয়ে বিষয়টি শিক্ষকদের জানালে শিক্ষকবৃন্দ ক্ষোভে উত্তাল হয়ে যায়। আয়োজকবৃন্দ পরিস্থিতি সামাল দিয়ে ঐ নাম্বরে ফোন দিয়ে দেখে সে একজন ভুয়া সাংবাদিক, টাউট, চাঁদাবাজ ও দালাল। সে গত কিছু দিন আগে প্রীতি লতার স্মরণ সভার নামে ঐক্য পরিষদের কে›ন্দ্রীয় সভাপতিকে ক্রেষ্ট দিবে বলে চাঁদা দাবি করছিল। কেন্দ্রীয় সভাপতি চট্টগ্রাম থাকবে না বলে চাঁদা না দেয়ায় এই সংগঠনের বিরুদ্ধে সে ক্ষেপেছে। সুপ্রিয় সাংবাদিক সমাজের প্রতি আহবান বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল এন্ড কলেজ ঐক্য পরিষদ কোন দলিয় সংগঠন নয়, একটি নির্দলীয় শিক্ষক সংগঠন হিসেবে এ সংগঠন এ পর্যন্ত কিন্ডাগার্টেন ও শিক্ষকদের কল্যাণে কাজ করে আসছে। শুধু তাই নয় এ সংগঠন সরকারের শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে সরকারের শিক্ষা কার্যক্রমে সন্তোষ্ট হয়ে শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে বিভিন্নভাবে সরকারকে সহযোগীতা করে আসছে। শুধু তাই নয় সরকারী দলীয় সংগঠন থেকে শুরু করে সব সংগঠনগুলো নিজেদের দাবী আদায়ের জন্য রাস্তায় নেমেছে শুধুমাত্র এই সংগঠন এই পর্যন্ত কোন দাবী আদায়ের জন্য রাস্তায় নামে নি। তাই বলা যায় এই সংগঠন সরকার বান্ধব। ঐক্য পরিষদ থেকে বহিস্কৃত একজন নেতা সরকার বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য, ২০১৮ সালে ঐক্য পরিষদের আগ্রাবাদ হোটেলের ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডি আই জি- ড. এস এম মনির-উজ-জামান মহোদয়ের উপস্থিতিতে শত শত নেতা কর্মীদের সামনে, সরকার, ব্যাব ও পুলিশের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেয়ায় ডি আই জি মহোদয় বহিষ্কৃত ঐক্য পরিষদের নেতাকে গ্রেফতার করতে বলছিল। তখন ডি আই জি মহোদয়কে অনেক বুঝিয়ে ক্ষমা চেয়ে তাকে গ্রেপ্তারের হাত থেকে বাঁচিয়েছিলাম। মাউশি বর্তমান ডিজি গোলাম ফারুক মহোদয়ের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সরকারকে হুমকি দিয়ে বক্তব্য দেয়ায় অনুষ্ঠানা প্রায় পন্ড হয়েছিল। তার আরো অনেক অপকর্ম, সরকারী বৃত্তি কেলেংকারী (তদন্তাধীন) সরকার বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। কিছু টাকার বিনিময়ে সিটিভির টক শোর সম্মানীর টাকা আত্মসাত করার জন্য এই বহিষ্কৃত স্ব-ঘোষিত অধ্যক্ষ, দুনীতিবাজকে কথিত সাংবাদিক, টাউট, চাঁদাবাজির জন্য নামে বেনামে ও দলীয় নামে গড়ে তোলা বিভিন্ন সংগঠনে পদ পদবী দিয়ে তাকে সেল্টার দিতে শিক্ষক দিবস পন্ড করতে চেয়েছে। বক্তারা সাংবাদিক সমাজের প্রতি উদ্বাত্ত আহবান জানিয়েছেন, শিক্ষকরা সকলের শ্রদ্ধার পাত্র বিধায় সার্বিক বিবেচনায় এসব টাউট, স্বঘোষিত সাংবাদিক, চাঁদাবাজ, কথিত সাংবাদিক নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করে শিক্ষকসমাজকে কৃতার্থ করবেন অন্যতায় এসব টাউট, দালাল, ভুঁয়া সাংবাদিকের বিরুদ্ধে শিক্ষক সমাজ রাস্তায় নামতে বাধ্য হবে। এসব টাউট, চাঁদাবাজ, কথিত স্ব-ঘোষিত সাংবদিক নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সারা বাংলাদেশের শিক্ষক সমাজ ও প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email