Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

মধ্যম হালিশহরের টেকের মোড়ে টমটম চালক কে ছুরিকাঘাতে খুন ,বন্ধু আহত বিগত কয়েক বছর আগেও চরম হট্টগোলে ফোরখান মারাত্মক আহত হয়েছিলেন

বিশেষ প্রতিনিধি:২৭জুন(চট্টগ্রাম )
নগরীর বন্দর থানাধীন মধ্যম হালিশহর(৩৮নং ওয়ার্ড)বাকের আলী ফকির টেকের মোড়ে ছুরিকাঘাতে মো. সাগর (১৯) নামে এক টমটম (ব্যাটারিচালিত অটো ট্যাক্সি) চালক খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় রাজু (২৪) নামে আরও একজন ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়েছে।আহত ব্যক্তি চালক সাগরের বন্ধু বলে প্রতিবেশী চালকরা জানিয়েছেন।

শুক্রবার রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টার সময় বাকের আলী টেকের মোড়স্থ আজিজিয়া মসজিদের সামনে এ ঘটনা ঘটে। বন্দর থানার আওতাধীন মধ্যম হালিশহর পুলিশ ফাঁড়িএ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
এদিকে, ঘটনার পর অভিযুক্ত এক যুবক(বকাটে-উৎশৃংখল প্রকৃতি)কে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তবে তার নাম পরিচয় জানা যায়নি।পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে টমটম চালক সাগর আজিজিয়া মসজিদ এলাকায় গেলে কয়েকজন যুবক তার গাড়িতে উঠতে চায়। কিন্তু সাগর তাদের গাড়িতে না নিয়ে চলে যায়।ঐ মসজিদের একাধিক মুসল্লি নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রতিবেদক জানান, ঘটনার পূর্বে একদল কিশোর(কিশোর গ্যাংস্টার ঐ টমটম চালকে প্রথমে জোর পূর্বক গাড়ীতে চড়ে সল্টগোলার দিকে যেতে জান। তা না করাতে চরম হট্টগোল বাদে,মুসল্লিদের দেখে কিশোর গ্যাংরা পালিয়ে যাই।

বন্দর থানার ওসি সুকান্ত চক্রবর্তী বলেন, আগের রাতে ঘটনার সূত্র ধরে শুক্রবার রাতে সাগর ও তার বন্ধু রাজু গাড়ি নিয়ে আজিজিয়া মসজিদ এলাকায় গেলে ১০/১২ জনের একটি দল গাড়িটি আটকে ফেলেন। বৃহস্পতিবার গাড়িতে না নেয়ার জেরে সাগর ও তার বন্ধু রাজুকে তারা মারধর করেন। এক পর্যায়ে ছুরিকাঘাতে সাগর ঘটনাস্থলেই মারা যান। আহত হন রাজু। রাজু বর্তমানে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনার পরপরই পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, ঘটনাস্থলে থাকা বন্দর থানার এসআই সাজেদ কামাল রাত্রে প্রতিবেদক কে বলেন, ‘এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। মূলত ঘটনাস্থলটি সম্পূর্ণ নির্জন এলাকা। মসজিদের সামনে হলেও পাশে কবরস্থান রয়েছে। আশপাশে কিছু দোকান থাকলেও লকডাউনের কারণে সব কিছুই বন্ধ। তবে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে’।

উল্লেখ্য বিগত কয়েক বছর আগেও ঐ রোডে অবৈধ টমটম,সিএনজি এবং অটো রিক্সা নিয়ে জনৈক মটর চালকলীগের ফোরখানের সাথে প্রভাবশালী কিছু নেতার চরম হট্টগোলে ফোরখান মারাত্মক আহত হয়েছিলেন।যা বিভিন্ন গণমাধ্যম-মিডিয়াতে প্রলাহ করে প্রকাশ হয়।

Print Friendly, PDF & Email