Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

শেষ পর্যন্ত ওসি প্রদীপ কে অন্ধকার শ্রীঘরে যেতে হল,আটক খুনি ওসি প্রদীপ…..! তার বিরুদ্ধে দু”শর অধিক হত্যার অভিযোগ রয়েছে.....

কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ৬আগষ্ট

কক্সবাজারের টেকনাফ থানার কুখ্যাত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ অবশেষে গ্রেফতার হয়েছে।দেশপ্রেমিক সেনা বাহিনীর একজন নিরাপরাধ সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান (৩৬) গুলি করে হত্যার মামলায় চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে।

ওসি প্রদীপের গ্রেফতারের বিষয়ে সিএমপির কোন কর্মকর্তা এ ব্যাপারে কথা বলতে চায়নি। সিএমপি কমিশনার মো. মাহবুবর রহমানকে ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

তবে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) সূত্র জানায়, প্রদীপ কুমার অসুস্থতাজনিত কারণে চট্টগ্রামের লালখান বাজারের পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যান। ৬আগষ্ট বৃহস্পতিবার দুপুরে সিএমপি সদর দফতরে আসেন তিনি। এরপরই তাকে পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়। দুপুর ২টায় তাকে নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে করে কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা হয় পুলিশ। তাকে বহনকারী মাইক্রোবাসের পাশে তিনটি গাড়িতে পোশাক পরিহিত ও সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্যরা ছিল। আরেকটি ভ্যানে সেনাবাহিনীর সদস্যরাও ছিলেন বলে জানা গেছে।

এদিকে একাধিক সুত্র বলেছে ওসি প্রদীপ দুইদিন আগে অসুস্থতার অজুহাতে থানার দায়িত্ব ছেড়ে চলে যায়। পরে গতকাল সিনহা হত্যার দায়ে তার বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার পরপরই সে হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নেয়ার তৎপরতা শুরু করে এবং ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম পালিয়ে আসে।

জানাগেছে সিনহা হত্যার পর থেকে ওসি প্রদীপসহ টেকনাফ থানার সকল পুলিশকে নজরধারী রাখছিল সেনা বাহিনী ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। টেকনাফ ছেড়ে চট্টগ্রামে চলে আসার পরপরই মূলত গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যের ভিক্তিতে মহানগরী লালখান বাজার এলাকা থেকে পুলিশ ওসি প্রদীপকে গ্রেফতার করে।

এর আগে বুধবার (০৫ জুলাই) রাতে সাবেক মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান নিহতের ঘটনাকে কেন্দ্র করে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাসকে প্রত্যাহার কর হয়।

একইদিন দুপুরে টেকনাফ উপজেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারহার আদালতে প্রদীপ ৯ পুলিশ সদস্যকে আসামি করে মামলা করেন তার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস।

ছবি ওতথ্য সূত্রঃ সংগৃহিত(অনলাইন পত্রিকা) কক্সবাজার,

Print Friendly, PDF & Email