Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

চট্টগ্রামে প্রণোদনা’র আবেদন গ্রহণে ব্যাংক ব্যবস্থাপকের তালবাহানা!

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীদের জন্য সরকার ঘোষিত প্রণোদনার আবেদন গ্রহণ না করে এক গ্রাহকের সাথে দূর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে অগ্রণী ব্যাংক চট্টগ্রামের কর্ণেলহাট শাখা ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে। প্রণোদনার আবেদনপত্র গ্রহণ না করে ওল্টো গ্রাহকের সাথে খারাপ আচরণসহ নানা তালবাহানার অভিযোগ ব্যাংকের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করেছে এক গ্রাহক।

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীর লিখিত আবেদন থেকে জানা যায়, স্ক্র্যাপ ব্যবসায়ী এম স্টিলের স্বত্বাধিকারী মোঃ মামুনুর রশিদ অগ্রণী ব্যাংক কর্ণেল হাট শাখার গ্রাহক একজন সিসি (হাইপো) ঋণ গৃহীতা। ২০১১ সালে তিনি ব্যাংকের এ শাখা থেকে ৫০লক্ষ টাকা ঋণ গৃহণ করেন তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে। যা পরিবর্তিতে ৬৫লাখ টাকা পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। ব্যাংকের সুদসহ অন্যান্য প্রাপ্য নিয়মিত পরিশোধ করার ফলে এখনও পর্যন্ত খেলাপী কিংবা খারাপ গ্রাহকের কোন তকমা তার প্রতিষ্ঠানের লাগেনি। ফলে তার ব্যাংক সিআইবিতেও কোন স্পট নেই বলে দাবী করেছেন। কিন্তু চলতি বছর করোনার মন্দায় তার ব্যবসায়িক লোকসান হওয়ায় খারাপ সময় কাটিয়ে উঠতে তিনি সরকার ঘোষিত প্রণোদনা পাওয়ার জন্য ব্যাংকের নিকট গত ১১ অক্টোবর আবেদন দাখিল করেন। ব্যাংক ম্যানেজার উক্ত আবেদন গ্রহণ না করে ওল্টো তার সাথে খারাপ ব্যবহার করছেন বলে তিনি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট অভিযোগ দায়ের করেছেন।

লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী বলেন, যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবসায়ীদের সুবির্ধার্থে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও তার সরকার কোভিড পরবর্তী সময় অর্থাৎ ডিসেম্বর-২০২০ পর্যন্ত সকল ঋণ অশ্রেণীকৃত দেখানোর জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন সেই অনুযায়ী উক্ত ঋণটি অশ্রেণীকৃত অবস্থায় আছে। সরকারের করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রার্দুভাবে ক্ষতিগ্রস্থ সিএমএসএমই খাতে চলতি মূলধন ঋণ/বিনিয়োগ সুবিধা প্রদানের লক্ষে ২০লক্ষ টাকা প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় সহযোগী জামানত বহাল রেখে ঋণ মঞ্জুরীর জন্য আবেদন করলে শাখা ব্যবস্থাপক ফয়জুল কবির চৌধুরীর বিরুদ্ধে আবেদন গ্রহণ না করে ওল্টো দুর্ব্যবহার করে ওনার চেম্বার থেকে ঐ গ্রাহককে বের করে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অগ্রণী ব্যাংক কর্ণেলহাট শাখার ব্যবস্থাপক ফয়জুল কবির চৌধুরী বলেন,আবেদন কেন গ্রহণ করবো না, অবশ্যই করব। প্রণোদনা’র আবেদন গ্রহণ না করার মতো কোন কারণ নেই। ওনাকে আসতে বলেন, আমরা অবশ্যই ওনার আবেদন রিসিভ করবো।

আবেদন গ্রহণ করা না করার বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযোগকারী মামুনুর রশিদ বলেন, ওনি গত ১২ অক্টোবর আবেদন গ্রহণ না করায় আমি ১৩ অক্টোবর রেজিস্ট্রার্ড ডাকযোগে আবেদন প্রেরণ করেছি এবং ঐদিন জিএম/ডিজিএম এর দপ্তরেও আবেদনের কপি জমা দিয়েছি।

Print Friendly, PDF & Email