Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

“ইকনোমিক ইমপেক্ট অব ওয়াটারলগিং অন লোকাল ট্রেডঃ দ্যা কেইস স্ট্যাডি অব খাতুনগঞ্জ চট্টগ্রাম” শীর্ষক ড্রাফট রিপোর্ট শেয়ারিং কর্মশালা অনুষ্ঠিত

 

“ইকনোমিক ইমপেক্ট অব ওয়াটারলগিং অন লোকাল ট্রেডঃ দ্যা কেইস স্ট্যাডি অব খাতুনগঞ্জ, হোলসেল কমোডিটি মার্কেট চট্টগ্রাম” শীর্ষক ড্রাফট রিপোর্ট শেয়ারিং কর্মশালা অনুষ্ঠিত

দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি, বাংলাদেশ পরিকল্পনা কমিশন ও ইউএনডিপি’র যৌথ উদ্যোগে “ইকনোমিক ইমপেক্ট অব ওয়াটারলগিং অন লোকাল ট্রেডঃ দ্যা কেইস স্ট্যাডি অব খাতুনগঞ্জ, হোলসেল কমোডিটি মার্কেট চট্টগ্রাম” শীর্ষক ড্রাফট রিপোর্ট শেয়ারিং কর্মশালা ১৫ নভেম্বর সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয়। খাতুনগঞ্জ এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণে যে অর্থনৈতিক ক্ষতি সাধিত হয় তা নিরুপণে পরিচালিত সমীক্ষার প্রাথমিক রিপোর্ট এর উপর স্টেকহোল্ডারদের মতামত নেয়ার লক্ষ্যে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি প্ল্যানিং কমিশন প্রোগ্রাম ডিভিশন’র চীফ (অতিরিক্ত সচিব) খন্দকার আহসান হোসেন, জয়েন্ট চীফ ও প্রকল্প পরিচালক-এনআরপি ড. নুরুন নাহার, বুয়েট’র ফ্যাকাল্টি অব আর্কিটেকচার এন্ড প্ল্যানিং’র ডীন প্রফেসর খন্দকার শাব্বির আহমেদ, চেম্বার পরিচালকদ্বয় মোঃ অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন) ও অঞ্জন শেখর দাশ, ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্টস বাংলাদেশ, চট্টগ্রাম’র চ্যাপ্টার চেয়ারম্যান নাজমুল লতিফ, চসিক’র চীফ সিটি প্ল্যানার আর্কিটেকচার এ.কে.এম রেজাউল করিম ও খাতুনগঞ্জ ট্রেড এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল হোসেন বক্তব্য রাখেন। এছাড়া চেম্বার পরিচালকবৃন্দ এ. কে. এম. আক্তার হোসেন, মোঃ আবদুল মান্নান সোহেল, সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর ও সাকিফ আহমেদ সালাম, ইউএনডিপি’র প্রতিনিধি জাহিদুল হক, এনআরপি’র সহকারী প্রকল্প পরিচালক মিস ফাতেমা, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সুশীল সমাজ ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। স্টাডি রিপোর্ট উপস্থাপন করেন এনআরপি’র কনসালটেন্ট ড. রিয়াজ আক্তার মল্লিক, ড. নজরুল ইসলাম, ড. আবু তৈয়ব মোঃ শাহজাহান ও সুমাইয়া বিনতে মামুন।

প্রধান অতিথি প্ল্যানিং কমিশন প্রোগ্রাম ডিভিশন’র চীফ (অতিরিক্ত সচিব) খন্দকার আহসান হোসেন বলেন-যেকোন সমস্যা সমাধানে গবেষণা ও সমীক্ষা পরিচালনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। খাতুনগঞ্জ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণে যে অর্থনৈতিক ক্ষতি সাধিত হয় তা নিরুপণের লক্ষ্যে এই রিসার্চ করা হয় এবং আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে চূড়ান্ত প্রতিবেদন তৈরী করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর পেশ করা হবে। তিনি এই জলাবদ্ধতা দূরীকরণে চিটাগাং চেম্বারকে অগ্রণী ভূমিকা পালনসহ প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানান।

চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন-৩০০-৪০০ বছরের পুরানো এবং প্রায় ২৫০ বছর আগে নামকরণকৃত খাতুনগঞ্জে ২০০৪ সাল থেকে জলাবদ্ধতার কারণে দোকান ও গুদামের মালামাল নষ্ট হয়ে শত শত কোটি টাকা লোকসান হয়েছে। তিনি চাকতাই খালকে পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে জলাবদ্ধতা নিরসনে স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদী কার্যকরী পরিকল্পনা গ্রহণের উপর গুরুত্বারোপ করেন। চট্টগ্রাম বন্দর তথা দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে কর্ণফুলী নদী ড্রেজিং করা, নালা নর্দমা নিয়মিত পরিস্কার করা, চাকতাই খালকে নৌ-চলাচলের উপযোগীকরণ, খালের মাটি দ্রুত উত্তোলন ও গভীরতা নিশ্চিত করা, খালের দুই পাড়ে রাস্তা ও ওয়াকওয়ে নির্মাণ, মিঠা পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থাকরণ এবং সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহের মধ্যে সমন্বয় সাধনের অনুরোধ জানান।

জয়েন্ট চীফ ও প্রকল্প পরিচালক-এনআরপি ড. নুরুন নাহার জলাবদ্ধতাকে চট্টগ্রামের উন্নয়নের অন্যতম প্রধান প্রতিবন্ধকতা উল্লেখ করে পরিকল্পিত পরিকল্পনার মাধ্যমে এর সমাধান সম্ভব বলে তিনি মনে করেন। তিনি কর্মশালা থেকে প্রাপ্ত পরামর্শ ও নির্দেশনা এ সমীক্ষাকে আরও সমৃদ্ধ করবে উল্লেখ করে নীতি নির্ধারকদের কাছে উপস্থাপন করা হবে বলে জানান।

প্রফেসর খন্দকার শাব্বির আহমেদ সমীক্ষা রিপোর্টকে বিজ্ঞানসম্মত উল্লেখ করে জানান রাজপথগুলো কাজে লাগিয়ে নগরীর বিন্যাস পুনরুদ্ধার করা যায়। তিনি এই সমীক্ষার উপর ভিত্তি করে আরও পর্যালোচনার মাধ্যমে স্থায়ী সমাধান খুঁজে বের করা এবং সরকারি, আন্তর্জাতিক বিশেষ করে জলবায়ু তহবিল ও বেসরকারি খাতের সহযোগিতায় বাস্তবায়নের পরামর্শ প্রদান করেন।

চেম্বার পরিচালক মোঃ অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন) বলেন-খাতুনগঞ্জ, আছাদগঞ্জ, কোরবানীগঞ্জ, চাকতাইসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় বিদ্যমান নালা নর্দমা একটির সাথে অপরটির সংযুক্ত হলেও তা হারিয়ে গেছে। এসব সংযোগ পুনরুদ্ধার করে আপাততঃ স্বল্পমেয়াদী সমাধানের মাধ্যমে জলাবদ্ধতা নিরসনের পাশাপাশি দীর্ঘমেয়াদী সমাধানের বিষয় বিবেচনার আহবান জানান। ধন্যবাদজ্ঞাপনসূচক বক্তব্যে চেম্বার পরিচালক অঞ্জন শেখর দাশ নাগরিকদের সচেতনতার উপর গুরুত্বারোপ করে খাতুনগঞ্জকে ইতালির ভেনিস নগরীর আদলে পর্যটন এলাকা হিসেবে গড়ে তুলতে কানেক্টিভিটি উন্নয়নের অনুরোধ জানান।

অন্যান্য বক্তারা চট্টগ্রামে বেদখল ও ভরাটকৃত খালসমূহ পুনরুদ্ধার, নদীর পাড় উন্নয়ন করে পর্যটন প্রসার, প্রয়োজনে বসতি স্থানান্তর, প্রাকৃতিক জলাধার রক্ষা করা, সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর আরো দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করা, সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা, পাহাড়ী মাটি খাল-নালায় না আসা, এলাকার জনগণকে সম্পৃক্ত করা, নালা ও

Print Friendly, PDF & Email