Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাঁশখালীতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে শ্রমিক পুলিশের সংঘর্ষে নিহত ৫,আহত অর্ধশত ইফতার জন্য সময় বরাদ্দসহ ১০ দফা প্রসঙ্গেঃ

বাশঁখালী প্রতিনিধিও চট্টগ্রাম প্রতিবেদকঃ১৭ এপ্রিল

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে নির্মীয়মাণ কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক ও পুলিশের সংঘর্ষে নিহত ৫জন আর অর্ধশত শ্রমিক আহত হবার খবর পাওয়া গেছে। বাঁশখালীতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ইফতারের জন্য সময় বরাদ্দসহ ১০ দফা দাবিতে বিক্ষোভরত শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে পাঁচ শ্রমিক নিহত হয়েছে। এতে ১৭ জন গুলিবিদ্ধসহ আরও ৫০ জন আহত হয়েছে। শনিবার ,১৭ এপ্রিল, বেলা ১২টায় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বেতন-ভাতা সংক্রান্ত বিক্ষোভ থেকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

গণ্ডামারা ইউনিয়নের বড়ঘোনায় ‘১৩২০ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র’ যৌথভাবে নির্মাণ করছে এস আলম গ্রুপ ও চীনের একটি প্রতিষ্ঠান। তবে এস আলম গ্রুপের কোনো বক্তব্য তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি।চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নিহতরা হলেন—গণ্ডামারা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব বড়ঘোনা মো. আবু ছিদ্দিকের ছেলে আহমেদ রেজা (১৮), একই এলাকার অলি উল্লাহর ছেলে রনি হোসেন (২২), নূর জামানের ছেলে শুভ (২৪) ও মো. দালু মিয়ার ছেলে মো. রাহাত (২২)। চমেকে মারা যাওয়া হাতিয়ার বাসিন্দা রায়হান।

অন্যদিকে আহতরা হলেন— হাবিব উল্লাহ (২১), মো. রাহাত (৩০), মিজান (২২), মো. মুরাদ (২৫), মো. শাকিল (২৩), মো. কামরুল (২৬), মাসুম আহমদ (২৪), আমিনুল হক (২৫), মো. দিদার (২৩), ওমর (২০) ও অভি (২২)

বিদ্যুৎকেন্দ্রের শ্রমিক আন্দোলনের নেপথ্যে…

এছাড়াও গণ্ডামারা পুলিশ ফাঁড়ির তিন সদস্য আহত হয়েছেন। তারা হলেন— ইয়াসির (২৪), আব্দুল কবির ও (২৬), আসাদুজ্জামান (২৩)।
বাঁশখালী থানার ওসি তদন্ত আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘বিদ্যুৎকেন্দ্রে সংঘর্ষে ৫জন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। এ সময় অন্তত ২৫ জন আহত হয়।এদিকে চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই শীলব্রত বড়ুয়া বলেন, ‘গুলিবিদ্ধ ৭ শ্রমিককে চমেক হাসপাতালে আনা হয়। এর মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। বাকিদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।’

জানা যায়, শনিবার সকালে শ্রমিকরা দাবি দাওয়া নিয়ে আন্দোলনে গেলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে বাধে। এতে পুলিশের গুলিতে ৫শ্রমিক নিহত হয়। গুলিবিদ্ধ হয় আরও ১৭ জন। বকেয়া বেতন পরিশোধ, বেতন বৃদ্ধির দাবি, শুক্রবার এক বেলা কাজ করা ও ইফতারের জন্য সময় বরাদ্দসহ ১০ দফা দাবিতে বিক্ষোভ করে শ্রমিকরা। শ্রমিক নিহতের খবরে বিদ্যুৎকেন্দ্রের ভেতর বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা আগুন ধরিয়ে দেয়।

Print Friendly, PDF & Email